নকল স্কিন কেয়ার প্রোডাক্ট চেনায় উপায়

ধরুন, শপিং মল বা অনলাইন থেকে আপনি কোনো বিউটি প্রোডাক্ট কিনলেন। নতুন প্রোডাক্ট কেনার খুশিতে মন তো আপনার উচ্ছ্বসিত। কিন্তু সেই উচ্ছ্বাস এক নিমেষেই দমে গেল যখন টের পেলেন প্রোডাক্টটি আসল নয় বরং ডুপ্লিকেট বা নকল পণ্য। একে তো অর্থ খরচ করে নকল পণ্য কেনার জন্য নিজেকে বোকা বলে দোষারোপ করবেন। দ্বিতীয়ত, এই নকল পণ্যে ব্যবহার করা নিম্নমানের উপাদানের কারণে ত্বকের ক্ষতি নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে উঠবেন। 

আজকাল বাজারে আসল পণ্যের চাইতে নকল পন্যের ছড়াছড়িই বেশি। এমনিতেই বিউটি প্রোডাক্টগুলোতে থাকে নানান ধরনের কেমিক্যাল। তার উপর যদি হয় তা নিম্নমানের, তবে রয়ে যায় স্কিন ডিজিজ বা স্কিন ক্যান্সারের মতো রোগের ভয়। তাহলে, উপায় কি? মানে আসল পণ্য চেনার উপায় কি? কীভাবে বুঝবেন পণ্যটি নকল নাকি আসল? আজকের ব্লগটা সাজানো হয়েছে তাইই নিয়ে। 

আসল প্রোডাক্টটি সম্পর্কে ধারণা নিন 

জি আজকের যুগে একটু চালাক না হলে চলে না। ঠিক তেমনি যেইই বিউটি প্রোডাক্টই কিনতে চান না কেন সেটার আসল রূপটা দেখে নিন। কেননা, আসলটা সম্পর্কে আপনার যদি ন্যূনত্ব ধারণা না থাকে। তাহলে নকল আর আসলের তফাত আপনি কোনদিনই ধরতে পারবেন না। তাই, সময় নিয়ে একটু গুগল করে দেখে নিন আসল প্রোডাক্টের বিস্তারিত। বা চলে যেতে পারেন প্রোডাক্টটির অফিশিয়াল ওয়েবসাইটেও। এমনকি প্রয়োজনে রেখে দিন সঙ্গে একখানা ছবিও। 

প্রোডাক্টটির প্যাকেজিং এবং লেবেল ভালো করে দেখুন 

আপনি যদি আসল প্রোডাক্টটি সম্পর্কে ধারণা না থাকে তাতেও সমস্যা নেই। কেননা, একটি প্রোডাক্টের আসল আর নকল অনেকটাই বুঝা যায় পণ্যটির প্যাকেজিং এবং লেবেল দেখে। একটু সময় নিয়ে তীক্ষ্ম দৃষ্টিতে ভালো করে পর্যবেক্ষণ করুন। প্যাকেজিংয়ের মান, কালার, লেবেলের ফন্ট, ডিজাইন, সাইজ, কালার ইত্যাদিসহ ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বিষয়গুলোও খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখুন। মনে রাখবেন, প্যাকেজিং এবং লেবেল তখনই নিখুঁত হবে যদি পণ্যটি হয় আসল। নকল প্রোডাক্ট হলে নিখুঁতের কাছাকাছি যাবে ঠিকই তবে খুঁত রয়েই যাবে। 

ম্যানুফ্যাকচারিং ইনফরমেশন পরীক্ষা করুন 

ম্যানুফ্যাকচারিং ইনফরমেশন বা উৎপাদনগত তথ্যসমূহতে নজর দিন এবার। প্রোডাক্টটির সিরিয়াল নাম্বার, বার কোড, উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ, সমস্তকিছু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে লেখা থাকে আসল প্রোডাক্টে। আবার, চাইলে আপনি আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে বার কোড স্ক্যানার কোনো অ্যাপ্স নামিয়ে নিতে পারেন। প্রোডাক্টটির গায়ে ধরলেই যদি সঠিক পণ্য হয় তাহলে আপনাকে সাথে সাথে নিয়ে যাবে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে। অথবা অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়েও মিলিয়ে নিতে পারেন সিরিয়াল নাম্বার। নকল পণ্যে এতটা পুঙ্খানুপুঙ্খ ডিটেইলস থাকে না। থাকলেও বার কোড স্ক্যান করলেই কেল্লাফতে! 

প্রোডাক্ট ইনফরমেশন চেক করুন 

মনে রাখবেন অরিজিনাল প্রোডাক্টে উৎপাদিত দেশের ভাষা বাদেও গ্লোবালি প্রচলিত এমন ২/১ টা দেশের ভাষায় প্রোডাক্ট সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্যাদি লেখা থাকে। যেমন ধরুন, কোরিয়ান প্রোডাক্টে কোরিয়ান এবং ইংলিশ অবশ্যই থাকবে। পাশাপাশি চাইনিজ বা জাপানিজও থাকার সম্ভাবনা থাকবে। এমনকি আপনি চাইলে আপনার ফোনে গুগল ট্রান্সলেটর অন করে ছবি তুললেই সেসব অজানা ভাষাটিই অনূদিত হয়ে আপনার ভাষায় দেখাবে গুগল। কিন্তু নকল পণ্যের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ইংলিশ ভাষাই ব্যবহার করা হয়। কোরিয়ান করা হলেও ভুল থাকার সম্ভাবনা থাকে প্রচুর। 

প্রোডাক্টটি হাতে নিয়ে পরীক্ষা করুন 

নকল প্রোডাক্টের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ সময়ই ওজনে গড়মিল থাকে। যদিও শপিংমলে দাঁড়িয়ে থেকে ওজন মাপার কোনো উপায় নেই তবুও হাতে নিলেই ওজন সম্পর্কিত একটা ধারণা করতে পারবেন। তাছাড়া, প্রোডাক্টের কালারও মিলিয়ে দেখুন। কারণ, নকল প্রোডাক্টের ক্ষেত্রে এমন অনেক কালারই তৈরি করা হয় যেগুলো আসল প্রোডাক্টেও তৈরি হয়নি। আবার, নকল প্রোডাক্টে ধোঁকা দেয়ার জন্য অনেক বেশি আর কড়া পারফিউম দেয়া থাকে যা প্যাকেটের উপর থেকেও টের পাওয়া যায়। কিন্তু আসল প্রোডাক্টে তা ম্লানই থাকে বলা চলে। তাই, হাতে নিয়ে পরীক্ষা করে দেখুন। 

অনুমোদিত ডিলার কিনা দেখে নিন 

শপিংমল হোক বা অনলাইন, যদি অনুমোদিত ডিলার হয়ে থাকে তবে অবশ্যই অনুমোদনের একটা কপি তাদের ওয়েবসাইটে বা প্রোডাক্টের স্পেসিফিকেশন আর নয়তো শপিংমলের দোকানের কোথাও না কোথাও টাঙানো থাকবেই। তাই ব্যাপারটা লক্ষ্য করুন। 

দামের তারতম্য নির্ণয় করুন 

একটা প্রোডাক্টের আসল মুল্য এবং নকল মূল্যের তারতম্য থাকে অনেক। দরকারে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে মূল্য দেখে নিন। টাকাতে কনভার্সন রেট জেনে নিজেই যাচাই করে নিতে পারবেন আসল দাম। তাছাড়া, ডিসকাউন্ট বা ছাড় দেয়ার পরও আসল আর নকল দামের তারতম্য দেখেই বুঝা যায় প্রোডাক্টের মৌলিকত্ব সম্পর্কে। 

 

সোর্স:  5 tips to spot fake Korean skincare products. 
02. This is how to avoid buying fake K-beauty product
0 I like it
0 I don't like it

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *