পোরস দূর করতে করণীয় এবং সমাধান

পোরস

পোরস দূর করতে করণীয় এবং সমাধান

আমাদের অনেকেরই নাকের চারপাশে ছোট ছোট গর্তের মত দেখা দেয়।এটিকেই সহজ ভাষায় পোরস বলে। মূলত পোরস হলো আমাদের ত্বকে উপস্থিত রোমকূপ যা বয়সের সাথে সাথে ধুলোবালি এবং সান ড্যামেজের ফলে বড় হয়ে যায়। আমাদের স্কিনের অয়েল গ্ল্যান্ড যখন অতিরিক্ত সিবাম তৈরী করে তখন আমাদের ত্বকে উপস্থিত রোমকূপ গুলো তুলনামূলক ভাবে বড় হয়ে যায়। তাই অয়েলি স্কিনে এই সমস্যা বেশি দেখা দেয়।

ওপেন পোরস দূর করতে করণীয়ঃ

ওপেন পোরস দূর করার জন্য সবথেকে বেশি জরুরী হচ্ছে প্রোপার স্কিন ক্লিঞ্জিং। নিয়মিত ৪টি স্টেপে স্কিন ক্লিঞ্জিং আপনাকে এনে দিবে পোরসহীন সুন্দর ফ্ললেস স্কিন। চলুন জেনে নেয়া যাক পোরস দূর করার ৪টি স্টেপ।

১/ নিয়মিত ফেইস ওয়াশঃ
সারাদিনের শত ব্যস্ততার মধ্যেও চেষ্টা করবেন প্রতিদিন সকাল এবং রাত দুইবেলা ফেইস ওয়াশ ব্যবহার করতে। নিয়মিত ফেইস ওয়াশ ব্যবহারে আপনার স্কিনে অতিরিক্ত সিবাম তৈরি হতে পারবে না যার ফলে আপনার ত্বকের ওয়েল কন্ট্রোল থাকবে এবং ধুলাবালি জমার সুযোগ থাকবে না।
পোরস দূর করার জন্য বিশেষভাবে ব্যবহার করতে পারেন -“innisfree Jeju Volcanic Pore Cleansing Foam” অথবা “Egg White Perfect Pore Cleansing Foam”

প্রোডাক্ট দুটি পারচেজ করতে ভিজিট করুনঃ
https://chardike.com/product/innisfree-jeju-volcanic-pore-cleansing-foam/

অথবা

https://chardike.com/product/egg-white-perfect-pore-cleansing-foam/

২/ এক্সফ্লোয়েটরঃ
রোমকূপের ছিদ্র বা পোরস দূর করার অন্যতম প্রধান উপায় হলো এক্সফলিয়েশন বা স্ক্রাবিং। একটি ভালো মানের স্ক্রাব দিয়ে এক্সফলিয়েট করলে ত্বকের মৃতকোষ দূর হয় এবং রোমকূপে জমে থাকা সব ময়লা পরিষ্কার হয়। এক্সফলিয়েট করার সময় নাক ও থুতনিতে বেশি করে ঘষতে হবে কারণ এ জায়গাগুলোতেই রোমকূপের পরিমাণ বেশি থাকে। যাদের ত্বকে বেশি ব্রণ রয়েছে তাদের জন্য বিটা এসিড বা স্যালিসাইলিক এসিড আছে এমন ধরনের এক্সফলিয়েট বা স্ক্রাব ব্যবহার করা উত্তম।

স্যালিসাইলিক এসিড এবং গ্লাইকোলিক এসিড সমৃদ্ধ কেমিক্যাল এক্সফ্লোয়েটর হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন – “COSRX – AHA 7 Whitehead Power Liquid” অথবা ফিজিক্যাল এক্সফ্লোয়েটর হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন ” Strawberry Sugar Food Mask”

প্রোডাক্ট দুটি পারচেজ করতে ভিজিট করুনঃ
https://chardike.com/product/cosrx-aha-7-whitehead-power-liquid/

অথবা

https://chardike.com/product/strawberry-sugar-food-mask/

৩/ ক্লে মাস্কঃ

প্রাচীন কাল থেকেই ত্বকের পরিচর্যা করার জন্য ক্লে মাস্কের ব্যবহার অনেক জনপ্রিয়। বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরি এসব ক্লে মাস্ক ত্বকের গভীরে যেয়ে পরিষ্কার করে এবং ত্বক থেকে বাড়তি তেল শুষে নেয়। তাই পোরসের গভীর থেকে পরিস্কার করার জন্য ক্লে মাস্কের ব্যবহারের জুড়ি নেই।

সকল ধরনের স্কিনের জন্য উপযোগী দুটি জনপ্রিয় ক্লে মাস্ক হলো – “Innisfree Super Volcanic Pore Clay Mask 2X” এবং ” Super Matcha Pore Clean Clay Mask”

প্রোডাক্ট দুটি পারচেজ করতে ভিজিট করুনঃ
https://chardike.com/product/innisfree-super-volcanic-pore-clay-mask-2x/

অথবা

https://chardike.com/product/super-matcha-pore-clean-clay-mask/

৪/ ময়েশ্চারাইজারঃ

জেল বেইজড ভালো একটি ময়েশ্চারাইজার আপনার ত্বকের সিবাম প্রোডাকশন কমিয়ে আনবে যার ফলে ধীরে ধীরে আপনার রোমকূপ গুলো সংকুচিত হয়ে আসবে।
জেল বেইজড ময়েশ্চারাইজার হিসেবে সুদিং জেল গুলো বেশি উপকারী। জেল বেইজড ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন – “Pax Moly Jeju Olle Snail Mucus Soothing Gel”

প্রোডাক্ট দুটি পারচেজ করতে ভিজিট করুনঃ
https://chardike.com/product/pax-moly-jeju-olle-snail-mucus-soothing-gel/

এই চারটি স্টেপ নিয়মিত ফলো করে খুব দ্রুত পেয়ে যাবেন পোরসহীন সুস্থ সুন্দর ত্বক।

 

2 I like it
1 I don't like it

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *