নাইট ক্রিম নাকি স্লিপিং মাস্ক - কোনটা বেশি উপকারী?

দাগহীন, কোমল আর সুন্দর ত্বক – কে না চায়? সেজন্য মানুষের পরিচর্যার কোন শেষ নেই। তবে এই পরিচর্যা করতে হবে নিয়ম মেনে। যেমন – দিনের বেলা সূর্যের প্রখর আলো, ধুলোবালি, তেল চিটচিটে ভাব সব মিলিয়ে ত্বক হয়ে থাকে ড্যামেজড। তবে এই ড্যামেজড রিপেয়ারিং সল্যুশন নিয়ে আসে রাত। কেননা, রাতের বেলায় শরীর ও ত্বক দুটোই অনেক বেশি রিল্যাক্স থাকে এবং সারাদিনের সমস্ত সেল ড্যামেজগুলোকেও পুষিয়ে নিতে পারে। তাই এই সময়টাতে ত্বকের যত্ন নেয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিউটি এক্সপার্টরা। 

এই সময় এমন কিছু স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে হয় যেগুলো সেল রিনিউয়াল এবং কোলাজন প্রোডাকশনে সাহায্য করে। জ্বি হ্যাঁ, স্লিপিং মাস্ক এবং নাইট ক্রিম নিয়েই কথা বলছি। স্লিপিং মাস্ক এবং নাইট ক্রিম – দুটোই স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট এবং দুটোই বেশ কার্যকরী। তবে দুটো এক জিনিস নয়। স্লিপিং মাস্ক এবং নাইট ক্রিম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে আজ। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক রাতের বেলার জন্য কোনটা বেশি উপযোগী আর উপকারী? স্লিপিং মাস্ক নাকি নাইট ক্রিম? 

নাইট ক্রিম কি? 

নাইট ক্রিম হচ্ছে অনেকটাই ময়েশ্চারাইজারের মতো – এর প্রাথমিক কাজ হচ্ছে ত্বকে পুষ্টির যোগান দেয়া এবং ত্বক থেকে অতিরিক্ত জল শুষে নেয়া। ত্বকের গভীরে ময়েশ্চার পৌঁছে দেয়া, কোলাজনের মাত্রা বৃদ্ধি করা এবং নতুন কোষ জন্মাতে সাহায্য করাও নাইট ক্রিমের কাজ। এই ক্রিমে ত্বকের সূক্ষ্ম রেখা এবং বার্ধক্যজনিত বলিরেখা দূর করার সক্রিয় উপাদানও থাকে। নাইট ক্রিম হচ্ছে নিত্যদিনের ব্যবহারের উপযোগী। আর নিত্যদিনের ব্যবহারে এই ক্রিম ত্বককে স্বাস্থ্যকর এবং তরুণ দেখাতে যা দরকার তাইই দিয়ে থাকে। 

স্লিপিং মাস্ক কি?র

স্লিপিং মাস্ক হচ্ছে অনেকটাই স্টেরয়ডের মতো – যা নাইট ক্রিমের চাইতে অনেক বেশি শক্তিশালী এবং কার্যকরী। ত্বকের দীপ্তি এবং আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলতে বুস্টারের মতো কাজ করে স্লিপিং মাস্ক। তাই, অনেক ক্ষেত্রেই এটিকে ইমারজেন্সি বিউটি ট্রিটমেন্ট বলা হয়ে থাকে। মূলত পরের দিন সকালে ঝলমলে এক ত্বক পেতেই এই মাস্ক ব্যবহার করা হয়ে থাকে।  এন্টি এজিং – উজ্জ্বলতা – ময়েশ্চারাইজিং – এই বিষয়গুলোকে রাতারাতি নিয়ন্ত্রণ করে থাকে স্লিপিং মাস্ক। স্লিপিং মাস্ক নিত্যদিনের ব্যবহারের উপযোগী নয়। তবে প্রয়োজনে জরুরি বিউটি ট্রিটমেন্টের ক্ষেত্রে স্লিপিং মাস্কের বিকল্প নেই। 

নাইট ক্রিম নাকি স্লিপিং মাস্ক? 

যেহেতু দুটো বিউটি ট্রিটমেন্টই প্রায় একই ধরণের উপাদান ব্যবহার করে তৈরি করা হয় – তাই দুটো ব্যবহারেই দারুণ উপকারীতা পাওয়া যায়। তবে নাইট ক্রিম হচ্ছে এমন একটা জিনিস যেটা আপনি সাধারণত প্রতি রাতে ব্যবহার করতে পারেন এবং বিশেষত তা শীতকালে ব্যাপক কার্যকরী। অন্যদিকে, স্লিপিং মাস্ক নিয়মিত ব্যবহার না করে বরং সপ্তাহে এক কি দুবার ব্যবহার করা যায়। তাহলে বলা যায় যে, নাইট ক্রিমের নিয়মিত ব্যবহার বন্ধ করে কেবল যখন দরকার তখন স্লিপিং মাস্ক ব্যবহার করলেই তো হয়। ন

যদি এমনটা ভেবে থাকেন তাহলে ভুল ভাবছেন। কারণ, প্রথমত নাইট ক্রিম প্রতিদিন ব্যবহারে ত্বক হয় মসৃণ আর স্বাস্থ্যকর। তাই এটার ব্যবহার বন্ধ করলে ত্বক হয়ে উঠবে ধীরে ধীরে ড্যামেজড। স্লিপিং মাস্ক যেহেতু নাইট ক্রিমের দীর্ঘমেয়াদি ব্যবহারের কার্যকারীতাকে বুস্ট করে; সেহেতু নাইট ক্রিমের অভাবে এটির কার্যকারীতা এবং কাঙ্ক্ষিত ফলাফল নাও আসতে পারে। তাই, নিয়ম মেনে যখন যেটা দরকার সেটাই ব্যবহার করতে হবে। দুটোই বেশ কার্যকরী আর দুটোই বেশ উপকারী। একটা নিয়মিত ব্যবহারে উপকার মিলে আর অন্যটা সেই নিয়মিত ব্যবহারকেই সাময়িক বুস্টে সহায়তা করে। তাই, অনেকেই স্লিপিং মাস্ককে নাইট ক্রিমের পরিপূরক বলে থাকে। 

Sources: Sleeping Mask vs. Night Cream: What’s the Difference and Which One to Use.
02. SLEEPING MASK VS. NIGHT CREAM: WHAT’S THE DIFFERENCE?
03. Sleeping Masks vs. Night Creams: Which One is Right for You?
04. রাতে ক্রিম মাখার সময় এ সব নিয়ম মানেন তো?
05. কোমল এবং উজ্জ্বল ত্বক পেতে দারুণ ৫টি নাইট ক্রিম!
2 I like it
1 I don't like it

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *